বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪

সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত ট্রাক হেলপার মোরশেদুল এর পরিবারকে শিবগঞ্জে নিসচা’র সেলাই মেশিন প্রদান

রাব্বী হাসান সুমন, শিবগঞ্জ (বগুড়া) স্টাফ রিপোর্টার

 

 

জনপ্রিয় সামাজিক সংগঠন নিরাপদ সড়ক চাই (নিসচা) শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার পক্ষথেকে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত মোরশেদুল এর পরিবারকে সেলাই মেশিন প্রদান করা হয়েছে। ২০২২ সালে উপজেলার কিচক ইউনিয়নের গোপিনাথপুর গ্রামের ট্রাক হেলপার মোরশেদুল সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত হয় তখন তার স্ত্রীর গর্ভে নয় মাসের সন্তান, সন্তানের মুখ দেখা ভাগ্য হয়নি তার। মোরশেদুল এর বাবা বাক প্রতিবন্ধী। একমাত্র উপার্জনক্ষম মোরশেদুলের মৃত্যুতে তার পরিবারে নেমে আসে শোকের ছায়া। অভাব অনটন হয় তাদের নিত্যসঙ্গী।তাদের পরিবারে আর্থিক সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনার জন্য নিসচা শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার সদস্যদের অর্থায়নে ক্রয়করা একটি সেলাই মেশিন প্রদান করা হয়।বুধবার (২০ মার্চ) দুপুর ৩ টায় উপজেলা ভূমি অফিস চত্বরে নিহত

মোরশেদুল এর স্ত্রীর নিকট সেলাই মেশিন প্রদান কালে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিনা আক্তার। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন সহকারি কমিশনার (ভূমি) তাসনিমুজ্জামান রোমেল।নিসচা শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি রশিদুর রহমান রানা’র সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক আব্দুল হান্নান এর সঞ্চালনায় এসময় উপস্থিত ছিলেন নিসচা শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী,সাংগঠনিক সম্পাদক আসাদুল্লাহ, প্রচার সম্পাদক সোহেল রানা,প্রকাশনা সম্পাদক মিজানুর রহমান,যুব বিষয়ক সম্পাদক সামসুর রহমান,কার্যনির্বাহী সদস্য আব্দুর রাজ্জাক প্রমুখ।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, নিসচা সংগঠন সমগ্র বাংলাদেশে সর্ব মহলে গ্রহণযোগ্যতা লাভ করেছে, সড়ক নিরাপদ হোক এটা সর্বমহলের দাবি এবং এটা আমারও দাবি।আজ সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত একটি অসহায় পরিবারকে নিসচা শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার পক্ষথেকে একটি সেলাই মেশিন দেওয়া হচ্ছে এটা অত্যন্ত ভাল কাজ। সেলাই মেশিন পেয়ে নিহত মোরশেদুল এর স্ত্রী কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, সেলাই মেশিন দিয়ে এখন কাজ করে টাকা উপার্জন করতে পারব এবং পরিবারকে কিছুটা হলেও যোগান দিতে পারব।তিনি নিসচা চেয়ারম্যান চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন ও শিবগঞ্জ উপজেলা শাখার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

উল্লেখ্য, নিহত ট্রাক হেলপার মোরশেদুল এর পরিবারকে ইতিপূর্বে নিসচা’র পক্ষথেকে একটি মাতৃছাগল দেওয়া হয়েছিল, সেই ছাগলের দুইটি বাচ্চা হয়েছে।

থেকে আরও পড়ুন

থেকে আরও পড়ুন