বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪

রাবনের লঙ্কা কান্ড এখন তেতুলিয়ায় পাথর বালি দস্যুদের নীতি নৈতিকতা বিবর্জিতদের লাইন এখন দীর্ঘ লম্ব হচ্ছে

পঞ্চগড় জেলা প্রতিনিধি খাদেমুল ইসলাম

 

 

পঞ্চগড় তেতুলিয়ায় জোট বেঁধেছে পাথর বালি দস্যুরা।এছাড়াও
সীমান্তে অবৈধ গরু,মহিষসহ মাদক চোরাচালান,
, চা-সিন্ডিকেট এবং অবৈধ ভাবে পাথর উত্তলন করে বানিজ্য গড়ে তোলা হয়েছে।গত ২০-২৫ বছর ধরে এমন চিত্র।
এব্যাপারে যেন দেখার বলার কেউ নেই। এ অবৈধ কাজে জড়িত রয়েছে । বিভিন্ন সময় রাজনৈতিক( নেতা) নেতৃত্ববৃন্দ,জনপ্রতিনিধি,কথিত সাংবাদিক,আর খোদ প্রশাসনের অসৎ কর্মকর্তারা। এযেন পাথর খেকোদের মহাযজ্ঞ।
তেতুঁলিয়া ডাহুক নদী এখন পাথর খেকোদের অভয়াশ্রম হয়ে দাড়িয়েছে। নদীর বিভিন্ন স্থানে গর্ত করে বিক্ষিপ্তভাবে ট্রাক্টর দিয়ে পাথর উত্তোলন করছে স্থানীয় প্রভাবশালী ৫০/৬০ টি সক্রিয় দলের
গ্রুপ। ফলে নদী যেমন তার চিরচেনা রুপ, বৈচিত্র্য হারাচ্ছে। তেমনি নষ্ট হচ্ছে পরিবেশ। পাথর বালি উত্তলন করে ভূগর্ভের শুন্যতা সৃষ্টি করলে ভুমীধসসহ ভয়াবহ ভুমিকম্পে মানুষ পরিবেশ বিপর্যয় ঘটতে পারে।১৯৮৬ সালে এ অঞ্চলে বড় ধরনের ভু কম্পের ফলে উঞ্চ উপস্রব বের হয়েছিলো।আব্যাহত ভাবে পাথর বালি উত্তলন একটি বড় ধরনের ভুমি কম্পের ব্যাপক জানমালের ক্ষতি হতে পারে।
পাথর খেকোদের অভয়াশ্রম হয়ে দাড়িয়েছে। প্রশাসনসহ অসৎ ব্যক্তিদের

নীতি নৈতিকতা বিবর্জিতদের লাইন এখন দীর্ঘ লম্বা হচ্ছে।পাথর বালি দস্যুদের দৌরাত্মে অসহায় আত্মসমর্পন করেছে এ উপজেলার বলিষ্ট কন্ঠস্বর গুলো।এখন আর কেউ প্রতিবাদ করছে না।
গত ১৫ বছর ধরে এ কাজ চলমান রয়েছে।সরকার আসে চলে গেলেও কিন্তু অবৈধ পাথর উত্তলন কোন ভাবে বন্ধ হয়নি। তেতুলিয়া উপজেলা করতোয়া, নদী
মহানন্দা নদী, ডাহুকনদী, ভেরসা নদী,গোবরা নদী, পাশা পাশি উপজেলার যত্র তত্র পুকুর বিল খাল আর চা -সহ ফসলী জমির গর্ভস্থ থেকে পাথর বালি উত্তলন থেমে নেই।শুরু থেকে বিভিন্ন সময়ে ক্ষতি গ্রস্থ ব্যক্তি দের মানববন্দন হয়েছে।সচেতনমহল থেকে প্রতিবাদ সমাবেশ হয়।নদীতে অবৈধ পাথর
বন্ধে আন্দোলন আর ক্ষমতা প্রভাব দেখিয়েছেন নিজেদের মাসুহারা বাড়ানোর জন্যে ঢুল পিটিয়ে যাচ্ছেন তারা নাকি মাসুহারা আশায়।এখন
অবৈধ পাথর বালি উত্তলন দস্যুদের দোরাত্ম সকল প্রতিবন্ধকতা নির্বাসন দেখার মতো এ প্রসংগে মুদ্রার অপর পাশে রয়েছে।

চোরে চোরে মাসতো ভাইরা যে যাই বলেন তেতুলিয়া অবৈধ পাথর ও বালু বন্ধে রাজনৈতিক নেতৃত্ববৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের সব স্থরের দায়িত্বশীল ও নীতিবানদের সুপ্ত বিবেক জগ্রত হবে এ মন প্রত্যাসা কামনা করছি।

থেকে আরও পড়ুন

থেকে আরও পড়ুন