শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪

বিরোধীদলীয় উপনেতা সাধারণ মানুষ নয় পুঁজিপতি শোষকদের স্বার্থরক্ষায় নিবেদিত

সিলেট বিভাগীয় প্রতিনিধি

 

 

বাংলাদেশ হিউমিনিষ্ট পাটি বি- এইচপি মহাসচিব ড. সুফি সামস্ সাগর বলেছেন,গতকাল ৬ ফেব্রুয়ারী জাতীয় সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে বিরোধীদলীয় উপনেতা আনিসুল ইসলাম মাহমুদ রপ্তানি খাতে নগদ সহায়তা কমানোর বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা প্রজ্ঞাপন রহিত করার দাবি জানান। তিনি বলেন, পোশাকশিল্প দেশের অর্থনীতির উন্নয়নের প্রধান চালিকা শক্তি। বিশেষ করে বর্তমান ডলার–

সংকটের সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের এই প্রজ্ঞাপন ক্ষতিকারক হবে বলে বক্তব্য দিয়েছেন। কিন্তু কি ক্ষতিকারক হবে তা বলেননি।
সম্প্রতি ৪৩টি রপ্তানি পণ্যের ক্ষেত্রে সরকারের দেওয়া নগদ সহায়তার পরিমাণ কমানো হয়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক এ নিয়ে গত ৩০ জানুয়ারি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে।

আনিসুল ইসলাম মাহমুদ একজন ধনাঢ্য পরিবারের সন্তান। তার পিতা মরহুম সিরাজুল ইসলাম মাহমুদ, দাদা খান সাহেব আব্দুল হালিম চৌধুরী। তিনি ইসলামাবাদ কায়েদে আজম বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতিতে এমএসসি করেন।

অর্থনৈতিক বিষয়টি তিনি ভালো বোঝেন। তবে ধনাঢ্য পুঁজিপতিদের স্বার্থসমূহ বিশেষভাবে বোঝেন। তার কথায় প্রতীয়মান হয় যে, তিনি পুঁজিপতি শোষকদের স্বার্থরক্ষায় নিবেদিত। কিন্তু তাকে যারা ভোট দিয়ে জাতীয় সংসদে পাঠিয়েছেন তাদের স্বার্থ তিনি বোঝেন না। যদি তিনি তাদের স্বার্থ বুঝতেন তাহলে সংসদে পুঁজিপতিদের পক্ষে কথা বলতেন না। তিনি কথা বলতেন, সাধারণ মানুষের পক্ষে। বাংলাদেশ ব্যাংকের জারি করা প্রজ্ঞাপন সমর্থন করতেন। কারণ, ডলার সংকট মোকাবেলা করার জন্য সরকার বিভিন্নমুখী পদক্ষেপ নিয়েছে। অহেতুক খরচ করা থেকে বিরত রয়েছে। পোষাক কারখানার মালিকদের অহেতুক প্রণোদনা দিয়ে আসছিল সরকার। এই প্রণোদনার কোন হেতু ছিল না। ব্যক্তিস্বার্থ ছাড়া এই

প্রণোদনায় সাধারণ মানুষের কোন স্বার্থ ছিল না।
বাংলাদেশ ব্যাংক পোষাক কারখানার পুঁজিপতি শোষকদের প্রণোদনার নামে নগদ টাকা সালামি দেওয়ার প্রথা বন্ধ করে জনস্বার্থ সুরক্ষা করেছে। তাদের এই সময়োপযোগী পদক্ষেপকে স্বাগত জানাই।

থেকে আরও পড়ুন

থেকে আরও পড়ুন