শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪

বকশীগঞ্জে সাংবাদিক নাদিমের কবর জিয়ারতে বিএনপির মিডিয়া সেল

বকশীগঞ্জ(জামালপুর)প্রতিনিধি

বাংলা নিউজ ২৪ ডটকম এর জেলা প্রতিনিধি ও বকশীগঞ্জ উপজেলা প্রেস ক্লাবের সদস্য সাংবাদিক গোলাম রাব্বানী নাদিম হত্যার ঘটনায় শোকাহত পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছে বিএনপির মিডিয়া সেল।
রোববার (১৮ জুন) দুপুরে বিএনপির কেন্দ্রীয় মিডিয়া সেলের আহŸায়ক সহ জহির উদ্দিন স্বপনের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল সাংবাদিক গোলাম রাব্বানী নাদিমের গোমের চর গ্রামের বাড়িতে যান। সেখানে প্রতিনিধি দল সাংবাদিক নাদিমের কবর জিয়ারত করেন এবং তার বাবা-মা, স্ত্রী, সন্তানদের সাথে কথা বলেন।
প্রতিনিধি দল এসময় শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা প্রকাশ করেন এবং তাদের পাশে থাকার ঘোষণা করেন।
এসময় বিএনপির কেন্দ্রীয় মিডিয়া সেলের আহŸায়ক জহির উদ্দিন স্বপন, বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও জামালপুর-১ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এম রশিদুজ্জামান মিল্লাত, জামালপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শাহ ওয়ারেছ আলী মামুন, জামালপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি হাফিজ রায়হান সাদা, সাংবাদিক নাদিমের বাবা আব্দুল করিম, বকশীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহŸায়ক মানিক সওদাগর, সদস্য সচিব ফকরুজ্জামান মতিন, যুগ্ন আহŸায়ক মিজানুর রহমান তালুকদার, যুগ্ন আহŸায়ক রফিকুল ইসলাম কারী, পৌর বিএনপির আহŸায়ক জাহিদুল ইসলাম প্রিন্স, দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা বিএনপির যুগ্ন আহŸায়ক আব্দুর রশিদ সাদা , বকশীগঞ্জ উপজেলা যুবদলের আহŸায়ক বিপ্লব সওদাগর, সদস্য সচিব মাহাবুবুর রহমান লাভলু সহ জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ, উপজেলা বিএনপি, পৌর বিএনপি ও বিভিন্ন ইউনিয়নের নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
এসময় মিডিয়া সেলের আহŸায়ক জহির উদ্দিন স্বপন বলেন, একটি অশুভ শক্তি সাংবাদিক নাদিম হত্যার মদদ দিয়েছে। যারা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা চায় না, মানুষের স্বাধীনতা চায় না তারাই সাংবাদিক নাদিম হত্যা করেছে। যারাই এ হত্যার সঙ্গে জড়িত থাকুক দেশের মানুষ এর বিচার চায় , বিএনপিও এই হত্যার বিচার চায়।
পরে নিলাখিয়া ইউনিয়নের চৌরাস্তা মোড় এলাকায় সাংবাদিক গোলাম রাব্বানী নাদিমের হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে উপজেলা বিএনপির উদ্যোগে একটি বিক্ষোভ সমাবেশে যোগ দেন মিডিয়া সেলের নেতৃবৃন্দ।
উল্লেখ্য, পেশাগত দায়িত্ব পালন শেষে পৌর শহরের কাচারী পাড়ায় নিজ বাসায় ফেরার পথে বুধবার (১৪ জুন) রাত সাড়ে ১০ টার দিকে চলন্ত মোটরসাইকেল থেকে টেনে হিচড়ে নামিয়ে ব্যাপক মারধর করা হয় সাংবাদিক নাদিমকে। এক পর্যায়ে তাকে পিটিয়ে মারাত্মক আহত অবস্থায় ফেলে রেখে যায় দুর্বৃত্তরা।
প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল আলম বাবুর উপস্থিতিতে তার ছেলে সহ কয়েক জন ইট দিয়ে আঘাত করে সাংবাদিক গোলাম রাব্বানী নাদিমকে মারাত্মকভাবে আহত করে। ১৫ জুন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান সাংবাদিক গোলাম রাব্বানী নাদিম। এ হত্যাকান্ডের ঘটনায় সাধুরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদুল আলম বাবুর সম্পৃক্ততা উঠে আসে।

 

জিএম

থেকে আরও পড়ুন

থেকে আরও পড়ুন