শনিবার, ২ মার্চ ২০২৪

প্যারিস খালের অংশে অবৈধ ভবন ভেঙে দেওয়ার হুঁশিয়ারি মেয়রের

মোঃ শাহাদাত হোসেন স্টাফ রিপোর্টার

 

 

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী মিরপুর প্যারিস খালের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম শুরু করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র (ডিএনসিসি) আতিকুল ইসলাম। এই কাজে অংশ নিয়ে অবৈধ দখলদারদের হুঁশিয়ারি দিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেছেন, চারতলা-পাঁচতলা যাই হোক, মিরপুর প্যারিস খালের ওপর নির্মাণ করা সব অবৈধ ভবন ভেঙে দেওয়া হবে।শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে মিরপুর প্যারিস খাল উচ্ছেদ অভিযানের সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

খালটির পরিচ্ছন্নতা কাজে সহযোগিতা করতে যুক্ত হয়েছেন বিডি ক্লিনের ১২শ স্বেচ্ছাসেবী। এর আগে, বিডি ক্লিনের ১২শ স্বেচ্ছাসেবীকে শপথ বাক্য পাঠ করান মেয়র আতিকুল ইসলাম।
আতিকুল ইসলাম বলেন, এরই মধ্যে খালের জমি মাপা শুরু করেছে গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ। যদি খালের জায়গা মধ্যে বিল্ডিং তৈরি করা হয়ে থাকে তা ভেঙে দেওয়া হবে। খালের জায়গার মধ্যে কিছু বস্তির জায়গা পড়েছে। বস্তির নিম্ন আয়ের মানুষদের বলেছি পর্যায়ক্রমে আপনারা এখান থেকে সরে যান।

তিনি বলেন, বস্তিবাসীদের এক মাস সময় দেওয়া হয়েছে সরে যাওয়ার জন্য। একদিকে তারা আমাদের সাথে কথা বলবে, অন্যদিকে খাল খনন ও অন্যান্য কার্যক্রম চলমান থাকবে। চাইলে আজকে বুলডোজার দিয়ে সব ভেঙে ফেলতে পারতাম, কিন্তু না ভেঙে তাদের সময় দিয়েছি।
তিনি আরও বলেন, এখানে কিছু কিছু জায়গায় মাদকের বাণিজ্য চলে। এখানে বড় একটি চক্র ও গ্যাং মাদক কারবারি করছে বলে আমার কাছে তথ্য এসেছে। অভিযান শুরু হয়েছে। এখানে ধাপে ধাপে কাজ করা হবে। প্রথমে আমরা প্যারিস খানের পানির প্রবাহ নিশ্চিত করতে চাই। খালের ৪০ ফুট জায়গা উদ্ধারের পরে যে জায়গা থাকবে, সেই জায়গায় ওয়াক ওয়ে তৈরি করা হবে। পরে দুইপাশে জায়গা পাওয়া গেলে সেখানে একটি নান্দনিক পার্ক তৈরি করব।
ডিএনসিসি মেয়র বলেন, এলাকার উচ্ছেদ অভিযান চালাতে হলে ওয়ার্ড কাউন্সিলর, গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ ও এলাকাবাসীকে দায়িত্ব নিতে হবে, শুধু সিটি কর্পোরেশন একা দায়িত্ব নেবে না। আমি আশা করি, এলাকাবাসীসহ সবাইকে সাথে নিয়ে সুন্দর নান্দনিক প্যারিস খালকে পুনরায় ফিরিয়ে আনব।

এর আগে, গত ৩১ জানুয়ারি মিরপুর প্যারিস খাল পরিদর্শন করে আজ থেকে এটার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনা এবং অবৈধ দখল উচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েছিলেন ডিএনসিসি মেয়র।

মোঃ শাহাদাত হোসেন স্টাফ
রিপোর্টার

পূর্ব ঘোষণা অনুযায়ী মিরপুর প্যারিস খালের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ ও পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম শুরু করেছেন ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র (ডিএনসিসি) আতিকুল ইসলাম। এই কাজে অংশ নিয়ে অবৈধ দখলদারদের হুঁশিয়ারি দিয়ে আতিকুল ইসলাম বলেছেন, চারতলা-পাঁচতলা যাই হোক, মিরপুর প্যারিস খালের ওপর নির্মাণ করা সব অবৈধ ভবন ভেঙে দেওয়া হবে।শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে মিরপুর প্যারিস খাল উচ্ছেদ অভিযানের সময় সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

খালটির পরিচ্ছন্নতা কাজে সহযোগিতা করতে যুক্ত হয়েছেন বিডি ক্লিনের ১২শ স্বেচ্ছাসেবী। এর আগে, বিডি ক্লিনের ১২শ স্বেচ্ছাসেবীকে শপথ বাক্য পাঠ করান মেয়র আতিকুল ইসলাম।
আতিকুল ইসলাম বলেন, এরই মধ্যে খালের জমি মাপা শুরু করেছে গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ।

যদি খালের জায়গা মধ্যে বিল্ডিং তৈরি করা হয়ে থাকে তা ভেঙে দেওয়া হবে। খালের জায়গার মধ্যে কিছু বস্তির জায়গা পড়েছে। বস্তির নিম্ন আয়ের মানুষদের বলেছি পর্যায়ক্রমে আপনারা এখান থেকে সরে যান।

তিনি বলেন, বস্তিবাসীদের এক মাস সময় দেওয়া হয়েছে সরে যাওয়ার জন্য। একদিকে তারা আমাদের সাথে কথা বলবে, অন্যদিকে খাল খনন ও অন্যান্য কার্যক্রম চলমান থাকবে। চাইলে আজকে বুলডোজার দিয়ে সব ভেঙে ফেলতে পারতাম, কিন্তু না ভেঙে তাদের সময় দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, এখানে কিছু কিছু জায়গায় মাদকের বাণিজ্য চলে। এখানে বড় একটি চক্র ও গ্যাং মাদক কারবারি করছে বলে আমার কাছে তথ্য এসেছে। অভিযান শুরু হয়েছে। এখানে ধাপে ধাপে কাজ করা হবে। প্রথমে আমরা প্যারিস খানের পানির প্রবাহ নিশ্চিত করতে চাই। খালের ৪০ ফুট জায়গা উদ্ধারের পরে যে জায়গা থাকবে, সেই জায়গায় ওয়াক ওয়ে তৈরি করা হবে। পরে দুইপাশে জায়গা পাওয়া গেলে সেখানে একটি নান্দনিক পার্ক তৈরি করব।

ডিএনসিসি মেয়র বলেন, এলাকার উচ্ছেদ অভিযান চালাতে হলে ওয়ার্ড কাউন্সিলর, গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ ও এলাকাবাসীকে দায়িত্ব নিতে হবে, শুধু সিটি কর্পোরেশন একা দায়িত্ব নেবে না। আমি আশা করি, এলাকাবাসীসহ সবাইকে সাথে নিয়ে সুন্দর নান্দনিক প্যারিস খালকে পুনরায় ফিরিয়ে আনব।

এর আগে, গত ৩১ জানুয়ারি মিরপুর প্যারিস খাল পরিদর্শন করে আজ থেকে এটার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম পরিচালনা এবং অবৈধ দখল উচ্ছেদের ঘোষণা দিয়েছিলেন ডিএনসিসি মেয়র।

থেকে আরও পড়ুন

থেকে আরও পড়ুন