সোমবার, ২০ মে ২০২৪

গোপালগঞ্জের বোড়াশী মাদক ব্যবসায়ী বিরুদ্ধে জোর পূর্বক জায়গা দখল ও গাছ কাটা সহ লুটপাটের অভিযোগ

মোঃতপু শেখ
গোপালগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি

গোপালগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার বোড়শী ইউনিয়নের বোড়াশী দক্ষিনপাড়া প্রাইমারী স্কুলের পাশের শেখ বাড়িতে জমি-জমার জেরে সন্ত্রাসী মাদক ব্যবসায়ী, হেরইন মামলার সাজাপ্রাপ্ত আসামী নাসির শেখ ও তার সন্ত্রাসী বাহীনি হামলার শিকার তারই ভাই হাদি শেখ ও তার পরিবারের সদস্যরা। সন্ত্রসী নাসির শেখের তান্ডবে ঘর ছাড়া ৯৫ বছর বয়াসী তদারই নিজের মা জোহরা খাতুন।

গত ২৯শে নভেম্বর বৃহসপতিবার আনুমানিক ৫টা ৩০ মিনিটে সন্ত্রাসী নাসির শেখ ও ভাড়াটিয়া ১০/১২ জন সন্ত্রাসী হাদি শেখের বাড়ী সংলগ্ন বি আর এস ৬৪৪ নং দাগের তার নিজেস্ব সম্পত্তির উপর লাগানো ২৫/৩০ টি ছোট বড় রেন্ডি গাছ জোর করে ভয় ভীত দেখিয়ে কেটে ফেলে যাহার আনুমানিক মূল্য ৬০,০০০/-টাকা। সে বাঁধা দিলে সন্ত্রাসী নিাসির হুকুম দেয় হারাম জাদাকে মারে বাঁধা দেওয়ার সাধ মিটাইয়া দে। এরপর সন্ত্রাসীরা তাকে মারধর করে আহত করেন ।তাকে বাঁচাতে হাদি শেখের বড়ছেলের স্ত্রী গেলে নাসির শেখ তাকে প্রচন্ড মারপিট করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মক জখম করে এবং তার পরনের কাপড় চোপড় টানিয়া বেবস্ত্র করিয়া ফেলে সেই সাথে তার গলা থেকে বার আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নিয়া যায়। যাহার মূল্য অনুমান ৭৫,০০০/-টাকা।
হাদি শেখের আরেক মেয়ে জেসমিন বেগম বাবাকে বাঁচাতে গেলে আসামীরা তাকেও মেরে জখম করে। তার গলায় থাকা ১ ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন টান মারিয়া নিয়া যায়। যাহার মূল্য অনুমান ১,০০,০০০/-টাকা।
গোন্ডগোলের ব্যপাটি আশেপাশের লোকজন জানতে পেরে ঘটনাস্থলে আসলে সন্ত্রাসীরা জোর করে রেন্ডি গাছ কেটে খন্ড খন্ড করিয়া নছিমনে করিয়া নিয়া যায়। যাওয়ার সময় হুমকি দিয়ে বলে, আইনের আশ্রয় নিলে তোদেরকে খুন করে লাশ গুম করে ফেলবো।
এ ব্যপারে হাদি শেখ বাদী হয়ে গোপালগঞ্জ আদালতে একটি ২৭/১২/২০২৩ইং তারিখে মামলা দায়ের করেন। গোপালগঞ্জ বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট মামলাটি আমলে নেবার জন্য গোপালগঞ্জ সদর থানায় নির্দেশ দিলেও গোপালগঞ্জ সদর থানা ব্যপারটি আজো কোন ব্যবসস্থা গ্রহন করে নাই বলে হাদি শেখ অভিযোগ করেন। তিনি আরো বলেন, গোপালগঞ্জ সদর থানা এক দারোগা নিজে বসে খেকে এই গাছ গুলো কেটে নেওয়ার সেহযোগীতা করেছেন। আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে দারোগার নামটি আড়াল করছি। তবে ব্যপারটি আমলে এনে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য সংস্লিস্ট কতৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করার প্রয়োজন বোধ করছেন ভুক্তভোগীর পরিবার।

থেকে আরও পড়ুন

থেকে আরও পড়ুন