বুধবার, ২২ মে ২০২৪

গোপালগঞ্জের কাঠিতে দলিলকৃত সম্পত্তিতে ঘর তুলতে বাঁধা সৃষ্টিকারী বহুমামলার আসামী তছিরন বেগম

মোঃতপু শেখ
গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি

গোপালগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার কাঠি ইউনিয়নের কাঠি বাজার সংলগ্ন এলাকয় দীর্ঘ্য ১৩ বছর আগে ১২ শতাংশ জায়গা কিনে ৬শতাংশ জায়গা দলির করে দিয়ে বাকী ৬ শতাংশ জমি দলিল না করে দিয়ে এলাকার কথিত ভূমি দস্যু ও একাধিক মামলার আসামী দবির শেখের স্ত্রী তসিরন বেগমের কু-পরামর্শে একত্রিত হয়ে জায়গা বুঝিাইয়া না দিয়ে উল্টো এ ব্যপারে কিছু বললে গোন্ডগোলের সৃষ্টি সহ নানা রকম হয়রানী মূলক আচারন করছে। অভিযোগের ভিত্তিতে সরেজমিনে গেলে জানা যায়, ঐ জায়গা ক্রয় করার জন্য কামনা বেগমের মেয়ে প্রবাসীর স্ত্রী ফারজানা বেগম প্রয় ১৩ বছর পূর্বে বাবুল শেখ ও তার পরিবার জোনাকী বেগমকে ভিটাবাড়ির জমি বাবদ টাকা প্রদান করেন। বর্তমনে জায়গার দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় জেনাকী বেগম ও তার পরিবকারের লোকজন এলাকার খারাপ প্রকৃতির লোক তসিরন বেগমের কু-পরামর্শে পড়ে জায়গাটি বুঝিয়া দিচ্ছে না, টাকা ফেরৎ চাইলে তাও দিচ্ছে না। ওরা গায়ের জোরে ওদের উপর অত্যাচার করছে। এ ব্যপারে গোপালগঞ্জ আদালতে একাধিক মামলা চলমান।
এ ব্যপারে ভুক্তভোগী প্রবাসীর স্ত্রী ফারজানা বেগমের মা বলেন, আমার মেয়ের কাছ থেকে জোনাকী বেগম ১৫ লক্ষ টাকা নিয়েছে জমি দেওয়ার কথা বলে। আমি যখন এই ব্যপারটি জানতে পাই আমি আমার মেয়ের কাছে জানতে পারি টাকা দিয়েছে তার প্রমান নাই। তখন আমি জোনাকীর সাথে কথা বলে সিদ্ধান্ত নেই আমার মেয়ের জমির দরকার নেই টাকা ফেরত দিয়ে দাও। সে আমার মেয়ের নামে ১৫ লক্ষ টাকার একটি চেক দেয়। আমরা ব্যাংকে গিয়ে দেখি ঐ একাউন্টে কোন টাকা নাই। এ ব্যপারে গোপালগঞ্জ আদালতে চেক এর একটি মামলা দায়ের করা আছে।
গত কিছুদিন পূর্বে আমার মেয়ের দলিলকৃত জায়গায় ঘর তুলতে গেলে জোনাকী বেগম তার পরিবারের লোকজন ও এলাকার কথিত একাধিক মামলার আসামী ভূমি দস্যু তসিরন বেগম, তার ছেলে, রফিকুল শেখ মুত্তাকীন শেখ, মেয়ে মুক্তা বেগম একত্রিত হয়ে আমাদের উপর হামলা করে, হামলায় আমার ১০ বছরের শিশু নাতি রিফাত শেখ, রাশেল শেখ, হেমায়েত শেখ সহ আমার জামাই রোমান শেখ আহত হয়। এই ভাবেই তারা তসিরনের পাল্লায় রপড়ে আমাদের উপর একের পর এক হামলা ও অত্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যপারে আমি ও আমার পরিবারের লোকজন আইনের সহায়তা কামনা করছি।

থেকে আরও পড়ুন

থেকে আরও পড়ুন