রবিবার, ৩ মার্চ ২০২৪

কমলগঞ্জে জোরপূর্বক জমি দখল ও খড়ের গাদায় আগুন

মোঃ সাইদুল ইসলাম মৌলভীবাজার প্রতিনিধি

 

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের শ্রীমতপুর গ্রামের মৌরসীসুত্রে প্রাপ্ত আহমদ আলী লুলুর ভূমি একই গ্রামের রুবেল মিয়া, ছবির মিয়া, জুবের মিয়া, আশিক মিয়া, ফটিক মিয়া, সুমন মিয়া, রিয়াজ মিয়া, শাহ আলম গং জোরপূর্বক দখল করে বাড়ির খড়ের গাদায় আগুন দেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে। জমি দখল করতে গিয়ে মারধর করা হয়েছে জমির মালিক আহমদ আলী লুলু ও তাঁর পরিবারকে। তাদেরকে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে জোরপূর্বক জমি দখলের পর রাতে আগুন দেওয়ার এ ঘটনাটি ঘটে। এ ঘটনায় কমলগঞ্জ থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন আহমদ আলী লুলু

 

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, উপজেলার পতনঊষার ইউনিয়নের শ্রীমতপুর গ্রামের মৌরসীসুত্রে প্রাপ্ত আহমদ আলী লুলুর মৌরসী সুত্রে প্রাপ্ত ভূমি নিয়ে একই গ্রামের রুবেল মিয়া, ছবির মিয়া, জুবের মিয়া, আশিক মিয়া, ফটিক মিয়া, সুমন মিয়া, রিয়াজ মিয়া, শাহ আলম গংদের সাথে বিরোধ চলছে। আহমদ আলী লুলু তার ভূমিতে পাকা ঘর নির্মান করার জন্য বালি, ইট এনে রাখেন

তখন প্রতিপক্ষ একই গ্রামের রুবেল মিয়া, ছবির মিয়া, জুবের মিয়া, আশিক মিয়া, ফটিক মিয়া, সুমন মিয়া, রিয়াজ মিয়া, শাহ আলমের নেতৃত্বে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে তাদের স্বজনরা জোরপূর্বক বাড়িতে ঢুকে ইট, বালি ফেলে জমি দখল করে নেয়।

এ সময় তারা আহমদ আলী লুলু ও তার স্ত্রীকে মারধর করে বসতঘরের আঙিনায় ফেলে যায়

পরে তাদেরকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করান। রাতে লুলুর বসত ঘরের পাশের খড়ের গাদায় আগুন দেওয়া হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভান।

 

এসব ঘটনায় প্রায় লক্ষাধিক টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে আহমদ আলী লুলু মিয়া জানান। প্রভাবশালী রুবেল মিয়া, ছবির মিয়া, জুবের মিয়া, আশিক মিয়া, ফটিক মিয়া, সুমন মিয়া, রিয়াজ মিয়া, শাহআলম গংরা খুব খারাপ থাকায় কেউ তাদের বয়ে কথা বলা বা প্রতিবাদ করার সাহস পায়না।

অভিযুক্ত শাহ আলম এর সাথে আলাপকালে তারা জানায়, ‘জমি দখল করার কোন প্রশ্নই উঠেনা। আমার তাদের বাড়িতে আগুন বা তাদের কোনো ক্ষয়ক্ষতি করিনি। তাদের অভিযোগ মিথ্যা।’

স্থানীয় ইউপি সদস্য মো. আব্দুল হান্নান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,‘ দুই পক্ষের মধ্যে জমি নিয়ে বিরোধ দীর্ঘ দিনের। এ বিরোধকে কেন্দ্র করে মারধরের ঘটনা ঘটেছে।’

কমলগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুর রাজ্জাক জায়গা সংক্রান্ত মারধর ও আগুন দেওয়ার অভিযোগ পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ‘অভিযোগ পাওয়ার পর পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। তদন্ত চলছে। দোষীর বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

থেকে আরও পড়ুন

থেকে আরও পড়ুন